Current Bangladesh Time
রবিবার অক্টোবর ২৪, ২০২১ ৮:৪৩ অপরাহ্ণ
Latest News




প্রচ্ছদ  » স্লাইডার নিউজ » ঝাল লাগলে পানি পান নয়! 
Tuesday September 28, 2021 , 11:53 pm
Print this E-mail this

পানি ঝাল কমায় না, মরিচের মধ্যে থাকা ক্যাপসেইসিন উপাদানটি মূলত একধরনের প্রাকৃতিক তেল

ঝাল লাগলে পানি পান নয়!


মুক্তখবর ডেস্ক রিপোর্ট : নাগা মরিচের সস দিয়ে আরামে খাচ্ছেন পিৎজা। কিংবা বিরিয়ানিতে থাকা সবুজ মরিচে আনমনে দিয়েছেন কামড়। তারপর? সে অভিজ্ঞতা আমাদের অনেকেরই আছে। লাফঝাঁপ করে, গ্লাসের পর গ্লাস পানি খেয়েও মরিচের ঝাল যায়নি; বরং একটু বেশি জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে।

এই পুরো ঘটনা ঘটে আমাদের অজ্ঞতার কারণে। পানি ঝাল কমায় না। মরিচের মধ্যে থাকা ক্যাপসেইসিন উপাদানটি মূলত একধরনের প্রাকৃতিক তেল। তেলে আর জল কি মেশে? মেশে না। কিন্তু অতিরিক্ত ঝাল কমানো যাবে সহজে। ঝাল খাওয়ার পর খেয়ে নিন :

দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার
ঝাল কমাতে দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার জাদুর মতো কাজ করে। এক চুমুক ঠান্ডা দুধ বা এক চামচ টক দই মুখ থেকে বার্নিং সেনসেশন দূর করে। ডেইরি প্রোডাক্টে কেসিন নামের একটি উপাদান রয়েছে, যা মরিচের ক্যাপসেইসিন ও পিপারিন নামের রাসায়নিককে ভেঙে ফেলে। তাই মুখে ঝাল অনুভূতি কমে যায় নিমেষেই।

মধু
ঝাল যখন খেয়েই ফেলেছেন, এক কাজ করুন। চটজলদি আধা চা-চামচ মধু মুখে পুরে নিন। মধু তৈলাক্ত ক্যাপসেইসিন শুষে নেয়। ফলে এর কার্যকারিতা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে।

শর্করাজাতীয় খাবার
ঝালের সমস্যা টেবিলে বসেই সমাধান সম্ভব। এক চামচ সাদা ভাত মুখে তুলে নিন। ব্যস, সব ঠিক এবার। ভাত ছাড়াও শর্করাজাতীয় অন্যান্য খাবার, যেমন আলু ও
রুটি জিভে একটি প্রলেপ তৈরি করে ক্যাপসেইসিন শুষে নেয়। ফলে ঝালও যায় চলে।

ক্ষারজাতীয় খাবার
জিভ থেকে অতিরিক্ত ঝাল দূর করতে ক্ষারজাতীয় খাবার ভালো কাজ করে। এ ধরনের খাবার ঝাঁজালো মসলার অ্যাসিডিটি নিষ্ক্রিয় করে দেয়। এ ক্ষেত্রে ঝাল কমাতে কয়েক টুকরো টমেটো ভালো করে চিবিয়ে খেয়ে ফেলুন। এ ছাড়া লেবু, কমলা ও আনারসের মতো ক্ষারযুক্ত ফলও ঝাল তাড়াতে দারুণ কার্যকরী।

সূত্র : এনডিটিভি ফুড

Archives




Image
বিশ্ব পোলিও দিবস উপলক্ষে বরিশালে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও পথ সভা
Image
রাজধানীর শ্যামলীতে মোটরসাইকেল শো-রুমে ডাকাতি, গ্রেপ্তার ৬
Image
সেতুতে যদি হাঁটতে পারতাম তবে সত্যি খুব ভালো লাগতো : প্রধানমন্ত্রী
Image
বরিশালে বাসচাপায় ট্রাফিক পুলিশ নিহত
Image
গার্মেন্টে কাজ করতেই বাড়ি ছেড়েছিল সেই দুই বোন