Current Bangladesh Time
বৃহস্পতিবার আগস্ট ৫, ২০২১ ৫:৫৯ অপরাহ্ণ
Latest News




প্রচ্ছদ  » স্লাইডার নিউজ » চলে গেলেন ‘বাংলাদেশের বন্ধু’ সায়মন ড্রিং 
Tuesday July 20, 2021 , 4:25 pm
Print this E-mail this

তার হাত ধরেই টেলিভিশন সাংবাদিকতা নতুন মাত্রা পেয়েছিল বাংলাদেশে

চলে গেলেন ‘বাংলাদেশের বন্ধু’ সায়মন ড্রিং


মুক্তখবর ডেস্ক রিপোর্ট : শুক্রবার রুমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় সায়মন ড্রিং’র মৃত্যু হয় বলে তার আত্মীয় ক্রিস বার্লাস ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার জানিয়েছেন৷ রয়টার্স, টেলিগ্রাফ ও বিবিসির হয়ে সায়মন ড্রিং দীর্ঘদিন কাজ করা ড্রিং’র বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর৷ বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি টেরেস্ট্রিয়াল টেলিভিশন স্টেশন হিসেবে একুশে টেলিভিশনের যাত্রা শুরুতে তার ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ৷ বলা হয়ে থাকে, তার হাত ধরেই টেলিভিশন সাংবাদিকতা নতুন মাত্রা পেয়েছিল বাংলাদেশে৷ সাইমন ড্রিং ছিলেন আন্তর্জাতিক পুরস্কার বিজয়ী বৈদেশিক সংবাদদাতা, টেলিভিশন উপস্থাপক এবং প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর জঘন্য ও নৃশংসতার বিবরণ দৈনিকে তুলে ধরে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে তার পথচলাঃ

১৭ বছর বয়সে তিনি প্রথম চাকুরিতে যোগদান করেন। ১৯৬৩ সালে থাইল্যান্ডের ব্যাংকক ওয়ার্ল্ড সংবাদপত্রে ‘প্রুফ রিডার’ (সম্পাদনা সহকারী) হিসেবে কাজ করেন। তারপর ১৯৬৪ সালে নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত নিউইয়র্ক টাইমসের স্ট্রিংগার হিসেবে কাজ করেন লাওস থেকে। একই বছর ভিয়েতনাম ভ্রমণ করেন। সেখানে তিনি বার্তা সংস্থা রয়টার্সের যুদ্ধবিষয়ক সংবাদ প্রতিনিধি হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এর মাধ্যমেই তিনি রয়টার্সের সর্বকনিষ্ঠ বৈদেশিক সংবাদদাতা হিসেবে নিজেকে ইতিহাসের পর্দায় ঠাঁই করে নেন। ১৯৭০ এবং ১৯৮০-এর পুরো দশক জুড়ে তিনি ডেইলী টেলিগ্রাফ সংবাদপত্র এবং বিবিসি টেলিভিশন নিউজের বৈদেশিক সংবাদদাতা হিসেবে সারা পৃথিবীতে কর্মরত ছিলেন। ঐ সময়ে তিনি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো থেকে প্রতিবেদন পাঠাতেন। ভারত, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ, আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ল্যাটিন আমেরিকা এবং ইউরোপের অস্থিতিশীল ঘটনাপ্রবাহ নিয়মিত তুলে ধরতেন সংবাদ মাধ্যমগুলোয়। পেশাগত জীবনে ২২টি যুদ্ধ ও অভ্যুত্থান কাভার করেছেন। বিবিসি টেলিভিশন ও রেডিও’র সংবাদ এবং সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে কাজ করেছেন প্রায় ২০ বছর। এছাড়া চলচ্চিত্র, আন্তর্জাতিক ঘটনা এবং সঙ্গীত বিষয়ে তার রয়েছে ব্যাপক ও বিচিত্র অভিজ্ঞতা। ইরানের শাহবিরোধী গণ-অভ্যুত্থান নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করে সায়মন ড্রিং নন্দিত হয়েছিলেন এবং অর্জন করেছিলেন অনেক পুরস্কার। সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি দু’বার আহতও হয়েছিলেন। প্রথমবার ভিয়েতনামে এবং দ্বিতীয়বার সাইপ্রাসে তুর্কিদের আগ্রাসনের সময়। বিবিসি রেডিও এবং টেলিভিশনে কাজ করার পাশাপাশি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সংবাদপত্র ও সাময়িকীতে লিখেছেন তিনি।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সাইমন ড্রিংয়ের ভূমিকাঃ

ভিয়েতনাম যুদ্ধ এবং বাংলাদেশের গণহত্যার ওপর প্রস্তুতকৃত প্রতিবেদন তাকে বিশ্বজোড়া খ্যাতি ও সুনাম এনে দেয়। সায়মন ড্রিং বাংলাদেশের গণহত্যার প্রত্যক্ষদর্শী প্রথম বিদেশি সাংবাদিক যিনি নিজের জীবন বিপন্ন করে সরেজমিন প্রতিবেদন তৈরি করে সারা বিশ্বকে জানিয়ে দেন পাকিস্তানি বাহিনীর লোমহর্ষক নির্যাতন ও গণহত্যার কথা। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় ভরা ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চের কালরাতে সাইমন ড্রিং তৎকালীন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে লুকিয়ে ছিলেন। তৎকালীন পাকিস্তানে সামরিক আইনের তোয়াক্কা না করে ২৭ মার্চ তিনি মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহ করে ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় প্রতিবেদন আকারে প্রেরণ করেন যা ট্যাংকস ক্র্যাশ রিভোল্ট ইন পাকিস্তান শিরোনামে ৩০ মার্চ প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জনমত সৃষ্টিতে তার এ প্রতিবেদনটি বিশ্বব্যাপী ব্যাপকভাবে সাড়া জাগিয়েছিল। উক্ত প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে, “আল্লাহর নামে আর অখণ্ড পাকিস্তান রক্ষার অজুহাতে ঢাকা আজ ধ্বংসপ্রাপ্ত ও সন্ত্রস্ত এক নগর। পাকিস্তানি সৈন্যদের ঠান্ডা মাথায় টানা ২৪ ঘণ্টা গোলাবর্ষণের পর এ নগরের…।” ১৯৭১ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার তাকে জোরপূর্বক দেশ থেকে বের করে দেয়। ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়ে পুনরায় নভেম্বর, ১৯৭১ সালে কলকাতায় আসেন তিনি। সেখান থেকে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের যাবতীয় খবরাখবর নিরপেক্ষভাবে ঐ দৈনিকে প্রেরণ করতেন। ১৬ই ডিসেম্বর তারিখে বিজয়ের দিনে যৌথবাহিনীর সাথে তিনিও ঢাকায় এসেছিলেন।

দাতব্য তহবিল সৃষ্টিঃ

১৯৮৬ সালে লন্ডনে ফিরে তিনি আফ্রিকা মহাদেশের দুর্ভিক্ষপীড়িত অঞ্চলের জনগণকে সহায়তার জন্য স্পোর্ট এইড নামীয় দাতব্য তহবিলের ধারণা তুলে ধরেন। তহবিল সৃষ্টিতে তাকে সর্বোতভাবে সহযোগিতা করেন বব গেল্ডোফ। অর্থ তহবিল সৃষ্টির বিষয়টি ছিল ইতিহাসে সবচেয়ে বৃহৎ ঘটনা যাতে অধিক জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ লক্ষ্য করা যায়। বিশ্বব্যাপী ১২০টি দেশের প্রায় ২০ মিলিয়ন মানুষ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে। ৩৭ মিলিয়ন ডলার এই তহবিলে জমা হয়। একই সালে দ্য রেস এসেইন্ট টাইম শিরোনামে অন্য আরেকটি দাতব্য তহবিল গড়েন সাইমন ড্রিং। এতে ১৬০টি দেশের প্রায় ৫৫ মিলিয়ন মানুষ অংশগ্রহণ করেছিল।

প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণঃ

বিবিসিতে কর্মরত অবস্থায় তিনি অনেকগুলো প্রামাণ্যচিত্র প্রযোজনা ও উপস্থাপনা করেন। আশির দশকের শুরুর দিকে তিনি বিবিসি ছেড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে ফিল্ম কোম্পানী খোলেন। সেখান থেকে বিবিসি ও পাবলিক ব্রডকাস্ট সার্ভিসের জন্য নির্মাণ করেন বিভিন্ন প্রামাণ্যচিত্র। তাছাড়া – সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন ও লাতিন আমেরিকার ওপর নির্মাণ করেন বিভিন্ন অনুষ্ঠান। এসব প্রামাণ্যচিত্র বা অনুষ্ঠানের উপস্থাপক, পরিচালক ও প্রযোজন ছিলেন তিনি নিজেই। সাইমন ড্রিং তার ১৯৬২ সালের বৈদেশিক ভ্রমণকে কেন্দ্র করে বিবিসি রেডিও ফোরের জন্য ‘অন দ্য রোড এগেইন’ নামে একটি প্রামাণ্য চিত্র তৈরি করেন ১৯৯২ সালে। পরবর্তীকালে ১৯৯৪ সালে ঐ ভ্রমণ নিয়েই একই নামে আরেকটি আট পর্বের প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেন। প্রামাণ্য চিত্রটি বিবিসি টেলিভিশন এবং ডিসকভারী চ্যানেলে প্রচার করা হয়েছিল। এছাড়াও, ১৯৯৫ সালে অন দ্য রোড এগেইন: থার্টি ইয়ার্স অন দ্য ট্র্যাভেলার্স ট্রেইল টু ইন্ডিয়া নামে একটি ভ্রমণ কাহিনীবিষয়ক বই পাঠকদেরকে উপহার দেন। বিবিসি রেডিও ফোরের জন্য নির্মাণ করেন ৪০ মিনিটের রিটার্ন দ্য রোলিং থান্ডার, যা ছিল তার ২০ বছর পর ভিয়েতনামে ফিরে যাওয়ার স্মৃতি নিয়ে অনুষ্ঠান। হাইতিতে আমেরিকার আগ্রাসন নিয়ে ভুডু ডানিসংসহ আরও অনেক টেলিভিশন অনুষ্ঠান তৈরি করেন। তাছাড়া, সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকারপ্রধানদের।

একুশে টেলিভিশনঃ

একুশে টেলিভিশনে কাজ শুরুর মাধ্যমে তিনি জীবনের একটি নতুন অধ্যায় শুরু করেন। এই প্রথম কোনো বড় টিভি স্টেশনের গুরু দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন। ১৯৯৭ সালে বিবিসি ছেড়ে তিনি একুশে’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশনের আধুনিকতার অন্যতম রূপকার। ২০০২ সালে একুশে টেলিভিশন সরকারের রোসানলে পড়লে তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য হয়। পরবর্তীতে ২০০২ সালের অক্টোবর মাসে সরকার সায়মন ড্রিংয়ের ভিসা এবং ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করে তাকে অবিলম্বে বাংলাদেশ ত্যাগের আদেশ দেন। এরফলে তিনি ১ অক্টোবর সালে বাংলাদেশ ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন।

পুরস্কার অর্জনঃ

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ বাংলাদেশে পাকিস্তানি সেনাদের নির্যাতনের ওপর প্রতিবেদন তৈরি করে অর্জন করেন ইন্টারন্যাশনাল রিপোর্টার অব দ্য ইয়ার; ইরিত্রিয়া যুদ্ধের ওপর ভ্যালিয়ান্ট ফর ট্রুথ; কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের যুদ্ধের প্রতিবেদনের জন্য সনি এবং হাইতিতে আমেরিকান আগ্রাসনের ওপর প্রতিবেদন তৈরি করে অর্জন করেন নিউইয়র্ক ফেস্টিভ্যাল গ্রান্ড প্রাইজ। তিনি একজন সেরা প্রুফ রিডারও ছিলেন। সাইমন ড্রিং বাংলাদেশের টিভি সাংবাদিকতার ইতিহাসে দিকপাল হয়ে থাকবেন। তিনিই গতানুগতিক ধারাই বাইরে গিয়ে নতুন ধারার সূচনা করেছেন।

বরিশাল মুক্তখবর পরিবারের পক্ষ থেকে গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী

Archives




Image
বরিশালে অপহৃত তরুণী উদ্ধার, গ্রেপ্তার ১
Image
বরিশালে নোহার রহস্যজনক মৃত্যু : সাক্ষী শিক্ষক হলেন আসামী
Image
বরিশালে জাল টাকাসহ দু’জন আটক
Image
এসব কথিত ‘মডেল’ ও টিভিকর্মীকে টাকার বিনিময়ে ব্যবহার করতেন মিশু
Image
করোনায় আক্রান্ত বরিশালের পুলিশ সুপার মো: মারুফ হোসেন